বাংলাদেশ-চীন উন্নয়ন অংশীদারিত্ব দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে : ঝ্যাং ঝুও

image

বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে। এ উন্নয়ন সহযোগিতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। ৩ জুন সোমবার জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে চীনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং ঝুও এসব কথা বলেন। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ও সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপ গঠন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

শীঘ্রই ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস অব চীনের ভাইস চেয়ারম্যান বাংলাদেশ সফর করবেন মর্মে চীনের রাষ্ট্রদূত স্পিকারকে অবহিত করেন। স্পিকার ভাইস চেয়ারম্যানের সফরকে স্বাগত জানিয়ে তাকে সকল ধরনের সহযোগিতা ও সহায়তা প্রদানের আশ্বাস প্রদান করেন। এসময় বাংলাদেশে অবস্থিত চীন দূতাবাসের পরিচালক ঝেং তিয়ানঝু এবং সংসদ সচিবালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

চীন বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু উল্লেখ করে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের এই সুসম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো জোরদার করা হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার চীন। তিনি বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে চীনের ভূমিকার প্রশংসা করেন এবং ধন্যবাদ জানান। এ সময় তিনি এ সকল সহযোগিতা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান। দু’বার চীনে সফরের স্মৃতিচারণ করে স্পিকার বলেন, উক্ত সফরে ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস অব চীনের স্পিকার তাকে বেইজিং এ উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। এ সফরকে ফলপ্রসূ উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে চীন বেশ আন্তরিক। ভবিষ্যতে দু’দেশের সংসদ সদস্যদের সফরের বিনিময়ে এ সম্পর্কে নতুন মাত্রা যোগ হবে।

চীনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং ঝুও বাংলাদেশকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বন্ধু প্রতীম দেশ হিসেবে অভিহিত করে বলেন, পারস্পারিক স্বার্থ সংশ্লি বিষয়ে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আঞ্চলিক সংযোগ বৃদ্ধি এ অঞ্চলের সব দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বয়ে আনবে। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব গুণ ও জনগণের প্রতি ভালবাসার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

দু’দেশের সংসদ সদস্যদের সমন্বয়ে বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী গ্রুপের মাধ্যমে আইন প্রণয়নসহ সংসদীয় অন্যান্য কার্যক্রমে উভয় দেশই উপকৃত হতে পারে বলে রাষ্ট্রদূত দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সহসাই বাংলাদেশ সংসদীয় প্রতিনিধি দলকে আনুষ্ঠানিকভাবে চীন সফরের আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে তিনি জানান।