download

বুধবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২১

একযোগে ৬৪ জেলায় টিকা কর্মসূচি

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

এক সপ্তাহ পরই দেশে আসছে করোনার টিকা (ভ্যাকসিন)। ৬৪ জেলায় একযোগে শুরু হবে টিকাদান কর্মসূচি। প্রথমে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে, এরপর ইউনিয়ন পরিষদ অফিস ও কমিউনিটি ক্লিনিকে টিকা দেয়া হবে। কর্মসূচি বাস্তবায়নে বুধবার (১৩ জানুয়ারী) শুরু হয়েছে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম। মহামারীকালে এই টিকার সুষ্ঠু ও যথাযথ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা, টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ এবং টিকা গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করাই এখন স্বাস্থ্য বিভাগের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হবে মনে করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ শুরু

প্রতিমাসে ৫০ লাখ করে আগামী চার মাসে দুই কোটি মানুষকে করোনার টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এই বিপুল জনগোষ্ঠীকে টিকাদানের জন্য প্রশিক্ষিত জনবল প্রয়োজন। কেন্দ্রীয়ভাবে বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে টিকাদান কর্মীদের প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে।

টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নে প্রশিক্ষণ দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (টিকাদান) ডা. শামসুল হক বুধবার সংবাদকে বলেন, ‘আজ থেকে প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে। আজকে কেন্দ্রীয়ভাবে প্রশিক্ষণ হয়েছে। এরপর জেলা পর্যায়ের স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রশিক্ষণ পাবেন, তারা গিয়ে মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেবেন।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রণয়ন করা প্রশিক্ষণ সহায়তার আলোকেই টিকা কর্মসূচি বাস্তবায়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া অনলাইন প্রশিক্ষণ, মাঠ পর্যায়ের প্রশিক্ষণ ও বাজেট চূড়ান্তকরণের কাজও এই প্রশিক্ষণ নির্দেশিকার আলোকে হচ্ছে। এই নির্দেশিকা ১৮ জানুয়ারির মধ্যে সব জেলা পর্যায়ে পৌঁছে যাবে বলে অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এছাড়া জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের (ডেপুটি সিভিল সার্জন, ইউএইচএফপিও) টিকা বিষয়ক প্রশিক্ষণ আগামী ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। সিটি করপোরেশন, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের প্রশিক্ষকদের (ট্রেইনার) প্রশিক্ষণ ২০ থেকে ২৪ জানুয়ারি এবং টিকাদান কর্মীদের প্রশিক্ষণ ২৩ থেকে ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে। আর ২৬ ও ২৭ জানুয়ারি হবে বিভিন্ন পর্যায়ের স্বেচ্ছাসেবকদের ওরিয়েনটেশন।

করোনার টিকা দেয়ার জন্য দেশব্যাপী সাত হাজার ৩৪৪টি দল তৈরি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। একটি দলের মধ্যে ছয়জন সদস্য থাকবে। এর মধ্যে দু’জন টিকাদানকারী (নার্স, স্যাকমো, পরিবারকল্যাণ সহকারী) ও চারজন স্বেচ্ছাসেবক থাকবেন। তারাই উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ইউনিয়ন পরিষদ, জেলা সদর হাসপাতাল, সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিশেষায়িত হাসপাতাল, পুলিশ-বিজেপি হাসপাতাল ও সিএমএইচ, বক্ষব্যাধি হাসপাতালে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবেন।

টিকা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার জন্য প্রচার-প্রচারণার শেষ মুহূর্তে প্রস্তুতি চলছে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রচার ও যোগাযোগ সংক্রান্ত কারিগরি বিশেষজ্ঞ ডা. মুশতাক হোসেন সংবাদকে বলেন, ‘তিনটি বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। প্রথমত, অগ্রাধিকারের তালিকা তৈরির বিষয়ে মানুষের কাছে ব্যাখ্যা করা হবে। এরপর মানুষকে বোঝানো হবে টিকা দেয়া কেন দরকার। তৃতীয়ত, টিকা দেয়ার পর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে কী করতে হবে- সে সম্পর্কে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হবে।’

টিকা কার্যক্রমে মাঠের চ্যালেঞ্জ

করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রচার ও যোগাযোগ সংক্রান্ত কারিগরি বিশেষজ্ঞ এবং সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘আমরা সচরাচর শিশুদের টিকা দিয়ে থাকি। কিন্তু করোনার টিকা দেয়া হবে অ্যাডাল্ট (প্রাপ্ত বয়স্ক) নাগরিকদের। এ কারণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা, অনেকে হুড়োহুড়ি লাগাতে পারে, তালিকা করতে গিয়েও সমস্যা হতে পারে, শক্তিমানরা যদি শক্তি দেখায়- তাতেও সমস্যা হতে পারে, এগুলো ম্যানেজ করাই চ্যালেঞ্জ।’

নির্দিষ্ট কাঠামো অনুযায়ী টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে জানিয়ে আইইডিসিআর’র সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা স্বাস্থ্য কেন্দ্র্রগুলোতে টিকা পাবেন। সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের আনা হবে। পরবর্তীতে বয়সভিত্তিক যখন টিকা দেয়া হবে, তখন ইউনিয়ন পরিষদ অফিস ও কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে যাবে। আর প্রাতিষ্ঠানিক অর্থাৎ বিভিন্ন অফিসের কর্মীদের স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আসতে বলা হবে, বিভিন্ন পেশায় যারা আছেন, যারা অর্গানাইজড। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সর্বস্তরের মানুষকে এই কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করতে হবে।’

মানুষকে সচেতন করতে নানা ধরনের প্রচার কৌশল হাতে নেয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এক ধরনের পরীক্ষামূলক প্রকাশ ঘটবে। সবাইকে ধৈর্য ধরে পর্যায়ক্রমে টিকা নেয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত করা, টিকা সম্পর্কে মানুষের কোন ধরনের ভয় বা বিভ্রান্তি না থাকে, সেদিকেও নজর রাখতে হবে।’

রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালের একজন চিকিৎসক (কোভিড-১৯ চিকিৎসায় নিয়োজিত) নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদকে বলেন, ‘করোনার ভ্যাকসিনের প্রয়োগ শুরু করার আগে স্বাস্থ্য বিভাগের সতর্কতার সঙ্গে এ সংক্রান্ত প্রচার-প্রচারণা চালানো উচিৎ। কারণ প্রথমত, করোনার কোন টিকাই চূড়ান্ত অনুমোদন পায়নি, গবেষণাও চলমান। আবার মহামারীর রাশ টেনে ধরতে জরুরি অনুমোদনের বিকল্পও নেই। কিন্তু টিকার নেতিবাচক দিক নিয়ে নানা মাধ্যমের অপপ্রচারে মানুষ যাতে বিভ্রান্ত না হয় সে বিষয়ে স্বাস্থ্য বিভাগকে পদক্ষেপ নিতে হবে। মহামারী সময়ে এই ধরনের অপপ্রচার সামাল দিয়ে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন একটি বড় চ্যালেঞ্জ।’

ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন নিয়ে নানা রকম অপপ্রচার শুরু হয়েছে- মন্তব্য করে ওই চিকিৎসক বলেন, ‘বর্তমানে বিশ^ব্যাপী ৬/৭টি প্রতিষ্ঠানের ভ্যাকসিনের প্রয়োগ চলছে। সবাই নিজেদের ভ্যাকসিনকে ভালো বা বেশি কার্যকর দাবি করছে। এটি বেশি বেশি প্রচার হচ্ছে, যাতে বিভ্রান্তি আরও বাড়ছে। এ কারণে আমাদের যেসব ভ্যাকসিন দেয়া হবে, সেগুলোর বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রচারণা চালানো প্রয়োজন।’

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা’ উদ্ভাবিত করোনার টিকা আগামী ২১-২৫ জানুয়ারির মধ্যে দেশে আসবে বলে গত ১১ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। তিনি জানান, প্রথম ধাপে ৫০ লাখ টিকা আসবে। ফেব্রুয়ারির শুরুতেই মানুষ টিকা পাবে।

টিকার সম্মতিপত্র নিয়ে বিভ্রান্তি

করোনার টিকা নিতে হলে আগ্রহী ব্যক্তিকে একটি সম্মতিপত্রে স্বাক্ষর করতে হবে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, ‘এতে বলা থাকবে, আমি স্বজ্ঞানে, স্ব-ইচ্ছায় এই টিকা নিচ্ছি।’

টিকা বিতরণ কমিটির সদস্য ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. শামসুল হক বলেন, ‘যাকে আমরা টিকা দিচ্ছি, তার একটা অনুমতির প্রয়োজন রয়েছে। আমরা একটি সম্মতিপত্র তৈরি করেছি। সেখানে রেজিস্ট্রেশন নম্বর, তারিখ, পরিচয়পত্র ও নাম থাকবে। সম্মতিপত্রে লেখা থাকবে- করোনার টিকা সম্পর্কে আমাকে অনলাইনে এবং সামনাসামনি ব্যাখ্যা করা হয়েছে। এই টিকা গ্রহণের সময়, অথবা পরে যেকোন অসুস্থতা, আঘাত বা ক্ষতি হলে, তার দায়ভার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী বা সরকারের নয়। টিকাদান পরবর্তী প্রতিবেদন, অথবা গবেষণাপত্র তৈরির বিষয়ে অনুমতি দিলাম। আমি স্বেচ্ছায়, সজ্ঞানে এই টিকার উপকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে অবগত হয়ে টিকা গ্রহণে সম্মত আছি।’

এই সম্মতিপত্রের কারণে টিকা গ্রহণে মানুষের মধ্যে অনীহা দেখা দিতে পারে কীনা জানতে চাইলে আইইডিসিআর’র সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘এতে এতোটা শঙ্কার কারণ নেই। কারণ যেকোন অপারেশনের সময়ও আমরা অঙ্গীকারনামা দেই। প্রশ্ন আসতে পারে, যে কোম্পানিগুলো ভ্যাকসিন তৈরি করেছে তাদের দায়মুক্তি দিতে হবে। কারণ হলো- ইর্মাজেন্সি ইউজ অথরাইজেশন। এটি এই কারণে যে, এগুলিকে (টিকা) ফার্মানেন্ট লাইসেন্স দেয়া হয়নি। মহামারীকে প্রতিরোধ করার জন্য ছয় মাসের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের পর কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তা দেখে এগুলিকে (টিকা) অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন ভ্যাকসিনের মারাত্মক কোন পাশর্^প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেছেন, ‘অনেকে হয়তো টিকা নেবে না, যদি কেউ না দেয়, সেটা না হয় থেকে যাবে। আমরা চেষ্টা করব বেশি মানুষকে টিকা দিতে।’

সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরু

image

২৬ মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

২০ লাখ ডোজ টিকা দিচ্ছে ভারত

image

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব হ্রাসে উপকূলীয় এলাকায় সবুজ বেষ্টনী তৈরি করা হবে- পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

image

১২ দফা দাবিতে নির্মাণশ্রমিকদের সমাবেশ

image

ঐক্যমত গড়তে রাজনৈতিক দলগুলোকে সম্মিলিত উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

image

সংসদে শোক প্রস্তাব উত্থাপিত

image

সংসেদ ৫ সদস্যের সভাপতিমন্ডলীর মনোময়ন

image

দেশে করোনায় আরও ১৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৯৭

image

এসডিজি বাস্তবায়নে শিল্পায়নের বিকল্প নেই: শিল্পমন্ত্রী

image

১০ মাস পিছিয়ে গেছে জনশুমারি

image

ওটিটি নীতিমালার খসড়া তৈরির নির্দেশ

image

৬ অঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ, বাড়তে পারে তাপমাত্রা

image

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধাদের খসড়া তালিকা

image

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রীর স্ত্রী বুলা আহম্মেদ আর নেই

image

বাংলাদেশি পাসপোর্টের রিনিউয়ের সুযোগ দেয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

image

কাউন্সিলরকে হত্যা দুর্ভাগ্যজনক, এটা কারো কাম্য নয়: ইসি সচিব

image

দেশের প্রয়োজনে প্রস্তুত সেনাবাহিনী : সেনা প্রধান

image

পায়রা সমুদ্রবন্দর নির্মাণে ৩৪২৩টি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে পুনর্বাসন করা হচ্ছে : নৌ-প্রতিমন্ত্রী

image

মোদীর সফর চূড়ান্ত করতে ২৭ জানুয়ারি দিল্লি যাচ্ছেন পররাষ্ট্র সচিব

image

অমর একুশে বইমেলা হবে , নেই নির্দিষ্ট সময়সূচি

image

দেশে করোনায় আরও ২৩ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫৬৯

image

শৈত্যপ্রবাহের মধ্যে বৃষ্টির পূর্বাভাস

image

করোনা মোকাবিলায় আরও ২৭০০ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা

image

জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি

image

স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের স্ত্রীর মৃত্যু :রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

image

পৌর নির্বাচনে বিজয়ী যারা

image

তথ্যে আস্থায় ভূমিকা রাখতে পারে ডেটাফুল: পরিকল্পনামন্ত্রী

image

কোনো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সরকারের আগে টিকা দিতে পারবে না: স্বাস্থ্যসচিব

image

বিশ্বে করোনা নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের অবস্থান ২০তম : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

image

নির্বাচন সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে: ইসি সচিব

image

পৌর নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক বলা যায় না: ইসি মাহবুব

image

তেজগাঁওয়ে ওয়ার্কশপে আগুন, কর্মচারীসহ সাতজন দগ্ধ

image

দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভায় ভোট শেষ, চলছে গণনা

image

দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫৭৮

image

দেশের সবচেয়ে কম তাপমাত্রা শ্রীমঙ্গলে

image

তাপস-খোকনের ভুল বোঝাবুঝির অবসান হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী

image

জাতীয় সংসদে সব ধর্মের রীতি অনুযায়ী প্রার্থনার দাবি

image

করোনা সংক্রমিত হয়ে যুগ্মসচিব নাসির উদ্দিনের মৃত্যু

image

৬০ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে

image

সরকারের উন্নয়নের কথা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

image

বেলজিয়ামের রাজাকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ

image

মঞ্জুর হত্যা: এরশাদ-লতিফকে অব্যাহতি দিয়ে সম্পূরক অভিযোগপত্র

image

দেশে করোনায় আরও ১৩ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৭৬২

image

এ বছর ঢাকায় হচ্ছে না শৈত্যপ্রবাহ

image

বার্ড ফ্লু ঠেকাতে তিন মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিলো প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয়

image

ধর্ষণের মামলায় বিচারের ক্ষেত্রে গুরুতর অসঙ্গতি: পর্যবেক্ষণ এমজেএফের

image

২০২২ ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকা-কক্সবাজার পথে ট্রেন চালু হবে

image

ভ্যাকসিন প্রদানে সরকার পুরোপুরি প্রস্তুত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

image

সৈয়দপুর পৌরসভার ভোট স্থগিত করলো নির্বাচন কমিশন

image

দেশে করোনায় আরও ১৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮১৩

image

বেসরকারি এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার ৮৬৬ টাকা করার সুপারিশ

image

জন্ম নিবন্ধনে ফিঙ্গার প্রিন্ট বাধ্যতামূলক করতে রুল

image

জাতির পিতার শিক্ষাকে পুঁজি করে কাজ করছি: প্রধানমন্ত্রী

image

‘স্বাভাবিক জীবনে’ ফিরছে ‘জঙ্গি পুনর্বাসনে’ থাকা তরুণ-তরুণী

image

এলপি গ্যাসেরা দাম পুনঃনির্ধারণে বিইআরসির গণশুনানি শুরু

image

প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতির সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

image

চীনের মধ্যস্থতায় রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে বৈঠক ১৯ জানুয়ারি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

image

করোনা ‘ধ্বংসকারী’ নাকের স্প্রে তৈরির দাবি গবেষকদের

image

করোনার জিনোম সিকোয়েন্সিং বাংলাদেশের প্রসংশায় জিআইএসআইডি

image

দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভায় ভোট শেষ, চলছে গণনা

image

দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫৭৮

image

দেশের সবচেয়ে কম তাপমাত্রা শ্রীমঙ্গলে

image

তাপস-খোকনের ভুল বোঝাবুঝির অবসান হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী

image

জাতীয় সংসদে সব ধর্মের রীতি অনুযায়ী প্রার্থনার দাবি

image

করোনা সংক্রমিত হয়ে যুগ্মসচিব নাসির উদ্দিনের মৃত্যু

image

৬০ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে

image

সরকারের উন্নয়নের কথা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

image

বেলজিয়ামের রাজাকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ

image

মঞ্জুর হত্যা: এরশাদ-লতিফকে অব্যাহতি দিয়ে সম্পূরক অভিযোগপত্র

image

দেশে করোনায় আরও ১৩ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৭৬২

image

এ বছর ঢাকায় হচ্ছে না শৈত্যপ্রবাহ

image

বার্ড ফ্লু ঠেকাতে তিন মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিলো প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয়

image

ধর্ষণের মামলায় বিচারের ক্ষেত্রে গুরুতর অসঙ্গতি: পর্যবেক্ষণ এমজেএফের

image

২০২২ ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকা-কক্সবাজার পথে ট্রেন চালু হবে

image

ভ্যাকসিন প্রদানে সরকার পুরোপুরি প্রস্তুত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

image

সৈয়দপুর পৌরসভার ভোট স্থগিত করলো নির্বাচন কমিশন

image

দেশে করোনায় আরও ১৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮১৩

image

বেসরকারি এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার ৮৬৬ টাকা করার সুপারিশ

image

জন্ম নিবন্ধনে ফিঙ্গার প্রিন্ট বাধ্যতামূলক করতে রুল

image

দেশে করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৪৯

image

এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ হবে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে

image

প্রায় পাঁচ লাখ টন চাল আসছে বেসরকারি পর্যায়ে

image

সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি করা হবে : পানিসম্পদ উপমন্ত্রী

image

মঙ্গলবার থেকে কমতে পারে তাপমাত্রা

image

সরকারি মাধ্যমিকে ভর্তির লটারি আজ

image

বঙ্গবন্ধুর ১০ জানুয়ারির ভাষণে দেশ পরিচালনার সব দিকনির্দেশনা ছিল : প্রধানমন্ত্রী

image

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বিটিআরসির পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবেঃ বিটিআরসি চেয়ারম্যান

image

বঙ্গবন্ধুর ৫০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে নির্মূল কমিটির আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার

image

করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার কমছে

image

রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টি করেছে মিয়ানমার: ড. মোমেন

image

ঢাকা শহরকে অত্যাধুনিক ভাবে গড়ে তোলা হবে: তাজুল ইসলাম

image

দেশে করোনায় আরও ২৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১০৭১

image

বঙ্গবন্ধুর খুনিসহ ৫২ জনের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল

image

অপশক্তিকে প্রতিহত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলা হবে: ওবায়দুল কাদের

image

রোহিঙ্গার হাতে স্থানীয় দোকান কর্মচারি খুন

image

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন শুরু

image

বাঙালির মুক্তি-সংগ্রামের ইতিহাসে এক ক্ষণজন্মা মহাপুরুষ বঙ্গবন্ধু

image

স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে জাতির পিতার অবদান ছিল অতুলনীয়: রাষ্ট্রপতি

image

আজ বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস

image