দ্বিপাক্ষিক চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরগুলোর প্রায় সবগুলোই একপাক্ষিক : নাগরিক ঐক্য

image

সম্প্রতি ভারত সফরে করা দ্বিপাক্ষিক চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরগুলোর প্রায় সবগুলোই একপাক্ষিক হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। এসময় সরকার মূল দুর্নীতিবাজদের বাদ দিয়ে চুনোপুটিদের ধরছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। সোমবার (৭ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে সমসাময়িক ইস্যুতে দলটির পক্ষ থেকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সার, সদস্য মমিনুল ইসলাম, মোফাখখারুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মাহমুদুর রহমান বলেন, একটা দ্বিপাক্ষিক আলোচনা উভয়পক্ষের জন্য মঙ্গলজনক হতে হবে। কোন পক্ষ কতটা লাভবান হবে সেটায় কিছুটা তারতম্য মেনে নেয়া যায়, কিন্তু এবার যেসব চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে সেগুলোর দিকে তাকালে দেখা যাবে এতে বাংলাদেশের ন্যূনতম স্বার্থ রক্ষিত হয়নি। সর্বপ্রথম আমরা দাবি করব এই চুক্তিগুলোর খুঁটিনাটি জনগণের জন্য প্রকাশ করা হোক। আমরা বিশ্বাস করি তাতে আমাদের সামনে আরও অনেক ভয়ঙ্কর তথ্য বেরিয়ে আসবে।

মান্না বলেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক স্মরণকালের সবচেয়ে উঁচুতে অবস্থান করছে। সবচেয়ে কাছের প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্পর্ক থাকা খুবই ভালো কথা। কিন্তু সেই সম্পর্ক শুধুমাত্র দেয়ার আমাদের পাওয়ার নয়, তাই সেটা আমাদের দেশের জন্য বিপর্যয়কর। দেশের বর্তমান ক্ষমতাসীন দলটি এখন পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে যেসব দ্বিপাক্ষিক চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে তার প্রায় সবগুলোই শেষ পর্যন্ত একপাক্ষিকই থেকেছে।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, মূল দুর্নীতিবাজদের বাদ দিয়ে যাদেরকে ধরা হচ্ছে তারা আসলে চুনোপুঁটি। এমনকি এই চুনোপুঁটিদের সরদারকে ধরতেও সরকারের অবিশ্বাস্য গড়িমসি আমরা দেখলাম। ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতিকে গ্রেফতারের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের সবুজ সংকেতের অপেক্ষা করছে- এমন রিপোর্ট আমরা দেখছিলাম বেশ কয়েকদিন ধরেই। দেশের আইন এবং বিচারব্যবস্থা কতটুকু দেউলিয়া হলে কতটুকু সরকারি দলের আজ্ঞাবহ হলে সম্রাটকে ধরার জন্য সবুজ সংকেতের অপেক্ষা করতে হয় সেটা বোঝাই যায়। অবশেষে সম্রাট গ্রেফতার হয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই গ্রেফতার এখন মজা করার বিষয়ে পরিণত হয়েছে; এক ঘটনা দিয়ে আরেক ঘটনাকে ধামাচাপা দেবার এই অস্ত্র ব্যবহারে ভোঁতা হয়ে গেছে।

শুধু লকডাউন চালিয়ে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব নয়: কাদের

করোনা মোকাবিলায় সচেতনতার পাশাপাশি জীবন ও জীবিকার কথাও ভাবতে হবে। জীবিকার কথা চিন্তা করেই লকডাউন শিথিল করা উচিত।

অসহায়দের পাশে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা ইয়াছিন আলী

image

গলাবাজি ছাড়া বিএনপি জাতিকে কি দিয়েছে : ওবায়দুল কাদের

image

স্বাস্থ্যখাতে ভুর্তকি বাড়ানোর প্রয়োজন: জিএম কাদের

image

জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে বিএনপি সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে : ওবায়দুল কাদের

image

চলতি সপ্তাহে করোনা নিয়ে নিজেদের পর্যবেক্ষণ জানাবে বিএনপি

image

ক্ষমতাসীনরা দেশকে মগের মুল্লুকে পরিণত করেছে : রিজভী

image

করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বিএনপির ১০ সাংগঠনিক সেল

image

করোনায় সরকার গার্মেন্টস-দোকানপাট খুলে দিয়ে গণসংক্রমণের সুযোগ করে দিয়েছে: রিজভী

image