হরতালে মরিচা ধরে গেছে : কাদের

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে বাম জোটের ডাকা হরতালে যানজট দেখা গেছে। বাস্তবতা বুঝে এ হরতালে জনগণের সাড়া নেই। হরতাল এখন আর গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কার্যকর হাতিয়ার নয়, এটা মরিচা ধরে গেছে। তিনি আরো বলেন, গ্যাসের দাম সমন্বয় করার জন্য দাম বাড়ানো হয়েছে। দাম বৃদ্ধির পরও ভর্তুকি দিতে হবে। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি বাস্তবসম্মত। রোববার ৭ জুলাই রাজধানীর ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমন্ডলীর সভা শেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, একেএম এনামুল হক শামীম, আইন বিষয়ক সম্পাদক শ.ম রেজাউল করিম, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের সদস্য অ্যাডভোকেট রিয়াজুল কবির কাওছার, মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ। এর আগে ওবায়দুল কাদেরর সভাপতিত্বে সভায় সম্পাদকমন্ডলীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি সম্পর্কে অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা ভোটের রাজনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে তা ভেবে রাজনীতি করি না। সঠিক, বাস্তবসম্মত ও জনস্বার্থের কথা ভেবে আমরা রাজনীতি করি। কতিপয় এনএলজি ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিতেই গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন দাবির বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা বিরোধীদলের গতানুগতিক বক্তব্য, নতুন কিছু নেই।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম জিয়াকে মুক্ত করা হবে বলে দেয়া বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির আন্দোলনের ডাক আষাঢ়ের তর্জন-গর্জন ছাড়া আর কিছুই নয়। দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আদালতের রায় তাদের বিরুদ্ধে গেলেই তারা বিচার, আইন ও সালিশ কিছুই মানে না।

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, যথাসময়ে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। দলের সদস্য সংগ্রহ অভিযানের বিষয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আগামী ২১ জুলাই সদস্য সংগ্রহের বই বিতরণ করার তারিখ নির্ধারিত রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী, নিষ্কলুষ, নির্বাচনে নৌকা মার্কার পক্ষে যারা কাজ করেছে দলে তাদের অন্তভূক্ত করাই সদস্য সংগ্রহ অভিযানের মুল লক্ষ্য।

সম্পাদকমন্ডলীর সভায় আলোচনার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সভায় শোকের মাস আগস্ট মাসব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ, মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বাতিল করে সম্মেলন অনুষ্ঠান ও জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের মদতদাতাদের বিরুদ্ধে শাস্তি দেয়ার বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয়েছে।