ক্যারিবীয় ঝড়ে সিলেটের প্রথম জয়

image

বিপিএলের দিনের প্রথম ম্যাচে খুলনা টাইগার্সকে ৮০ রানে হারিয়ে আসরে নিজেদের প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে সিলেট থান্ডার। অপরদিকে আসরে এটা খুলনার প্রথম হার। ২১ ডিসেম্বর টস হেরে আগে ব্যাটিং করে পাঁচ উইকেটে ২৩২ রান করে সিলেট থান্ডার। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ওপেনার আন্দ্রে ফ্লেচারের সেঞ্চুরি এবং জনসন চার্লসের ৯০ রানের বিধ্বংসী দুটি ইনিংসে এই সংগ্রহ পায় সিলেট। জবাবে ১৮.৩ ওভারে ১৫২ রানে অলআউট হয় খুলনা। পাহাড়সম লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে প্রথম বলেই ফিরে যান খুলনার আফগান রিক্রুট রহমানুল্লাহ গুরবাজ (০)। এরপর রান দলের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন রাইলি রুশো। আসরে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা রুশো এবং খুলনার হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা সাইফ হাসান দলের রান বাড়াতে থাকেন। দুজন মিলে দলের রানের খাতায় যোগ করেন ৭৪ রান। ২০ বলে ২০ রান করে রানআউট হয়ে ফিরে যান সাইফ। এরপর দশম ওভারের ৩২ বলে ৫২ রান করে ফিরে যান রুশো। বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করেন মুশফিকুর রহিম এবং শামসুর রহমান। বেশিদূর যেতে পারেননি শামসুর। আর দলীয় ১০০ রানে ফিরে যান মুশফিক। শেষ দিকে ২০ বলে ৪৪ রান করেন রবি ফ্লাইলিঙ্ক। তাতে কেবল পরাজয়ের ব্যবধান কমা পেরেছে খুলনা।

এর আগে সিলেটের ইনিংসে প্রথম ওভারে ফিরে যান সিলেটের ওপেনার আবদুল মজিদ (২)। তারপর আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে থাকেন ফ্লেচার এবং চার্লস। প্রথমে চার্লস মাত্র ২৫ বলে হাফ সেঞ্চুরির দেখা পান। পরে সমান বলে হাফ সেঞ্চুরি পান ফ্লেচারও। এই দুজনের তা-বে নবম ওভারের প্রথম বলে দলীয় শতকের দেখা মেলে সিলেটের। আক্রমণাত্মক ক্রিকেটে শত রানের জুটিও গড়েন দুজন। দুজনের ১৫০ রানের জুটি ভাঙেন শহিদুল ইসলাম। শহিদুলের বলে লেগ বিফোর উইকেট হওয়ার আগে ৩৮ বলে ৯০ রান করেন চার্লস। ইনিংসে ছিল ১১টি চার ও পাঁচটি ছক্কার মার।

চার্লস বিদায় নেয়ার পর দ্রুত বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুন (৩)। তারপরেও তা-ব চালিয়ে যান ফ্লেচার। তাকে সঙ্গ দিতে আসা মোসাদ্দেক ১১ বলে ১১ রান করে ফিরে যান। ইনিংসের ১৯তম ওভারে টি-২০ ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি তুলে নেন ফ্লেচার। শেষ পর্যন্ত ৫৭ বলে ১০৩ রানে অপরাজিত থাকেন ফ্লেচার। ইনিংসে ছিল ১১টি চার ও পাঁচটি ছক্কার মার। সিলেটের করা ২৩২ রান বিপিএল ইতিহাসের চতুর্থ দলীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ। একই সঙ্গে চলতি আসরে এটা দ্বিতীয় দলীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

সিলেট থান্ডার ২০ ওভারে ২৩২/৫

(ফ্লেচার ১০৩*, চার্লস ৯০; ফ্রাইলিঙ্ক ২/৩৭)

খুলনা টাইগার্স ১৮.৩ ওভারে ১৫২

(রুশো ৫২, ফ্রাইলিঙ্ক ৪৪; সান্টোকি ৩/৩৭)