ম্যানিটোবায় ক্রিকেট লীগে বেঙ্গল টাইগার্স চ্যাম্পিয়ন

http://thesangbad.net/images/2019/May/21May19/news/u3.jpg

আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশ প্রথম কোনো ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হলো। শুধু বাংলাদেশেই নয় দেশের বাইরে বাংলাদেশিরা ক্রিকেটের সুনাম বৃদ্ধি করছে। ঠান্ডার দেশ কানাডার ম্যানিটোবাটায় ক্রিকেট লীগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বেঙ্গল টাইগার্স । কানাডা প্রবাসী মোহাম্মদ সাকিবুর রহমান খান ম্যানিটোবা থেকে বেঙ্গল টাইগার্স ক্রিকেট দল নিয়ে লিখেছেন।

কানাডার ম্যানিটোবার ক্রিকেট ইতিহাস বেশ সম্মৃদ্ধ। এই প্রভিন্সে প্রথম খেলার খবর পাওয়া যায় ১৮৬৫ সাল থেকে। এই দেশে ব্রিটিশদের হাত ধরে ক্রিকেট আসলেও তখন শুধু মাত্র ব্রিটিশরা ক্রিকেট খেলত। ইমিগ্রেন্টরা ব্যাপক ভাবে কানাডায় আসার পর ক্রিকেট ছড়িয়ে পরে। ভারতীয় , পাকিস্তানী এবং ক্যারিবিয়ান ইম্মিগ্রেন্টদের হাতে ক্রিকেট এর প্রসার লাভ করে। কানাডায় বাংলাদেশিদের ব্যাপক ভাবে আগমন শুরু হয়েছে মাত্র ২০- ২৫ বছর আগে থেকে। এর মাঝে কানাডার বিভিন্ন প্রভিন্সের মত ম্যানিটোবাটে বাংলাদেশিদের ভালো অবস্থান রয়েছে।

http://thesangbad.net/images/2019/May/21May19/news/u2.jpg

ম্যানিটোবায় ক্রিকেটের প্রাতিষ্ঠানিক ভিত্তি পায় ১৯৩৭ সালে। ওই বছর প্রথম গঠিত হয় ম্যানিটোবা ক্রিকেট এসোসিশন। সেই বছর থেকে চালু হয় দুইটি লীগ। একটি রাজধানী উইনিপেগের নামে "উইনিপেগ সিটি লীগ " এবং "ম্যানিটোবা রুরাল ডিস্ট্রিক্ট লীগ"। উইনিপেগ সিটি লিগে অংশ নিয়ে আসছে শহরের বিভিন্ন দলগুলি আর অন্য দিকে ম্যানিটোবা রুরাল ডিস্ট্রিক্ট লীগে প্রভিন্সের অন্যান্য জেলার দলগুলি অংশ নিয়ে থাকে।

এই দেশে ক্রিকেট খেলার বড় বাঁধা আবহাওয়া। বছরের ৬/৭ মাস এই প্রভিন্স বরফের নিচে ঢাকা থাকে। ২ মাস তাপমাত্রা থাকে হিমাঙ্কের নিচে। মূলতঃ ৪ মাস আউটডোর ক্রিকেট খেলা হয় শহরের এসিনিবয়েন পার্কে। সেখানে ক্রিকেট খেলার ৩ টি মাঠ রয়েছে। সেখানে সামারে চলে আউটডোর ক্রিকেট। অন্য সময়ে ইনডোরে খেলা হয়। বিভিন্ন স্কুল গুলিতে ইনডোর ক্রিকেট বেশ জনপ্রিয়। মূলতঃ ভারতীয় উপমহাদেশের ছাত্র - ছাত্রীরা স্কুলে ক্রিকেট খেলে থাকে। স্কুল থেকে সব ধরণের উপকরণ দেয়া হয়। এমন কি স্কুল গুলি কোচের ও ব্যাবস্থা করে থাকে।

সম্প্রতি একটি সিক্স এ সাইড ইনডোর ক্রিকেট টুর্নামেন্টে বাংলাদেশী বংশোভূত কানাডিয়ান টিম বেঙ্গল টাইগার্স চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। লীগ ভিত্তিক এই টুর্নামেন্টে মোট ১০ টি দল অংশ গ্রহণ করে। তারা ৯ টি খেলার সব গুলিতে জয়লাভ করে। রানার আপ হয় টাভর্নেরস। টাভর্নেরস এর সিড রবার্টস সবচেয়ে বেশি ৩৮১ রান করেন টুর্নামেন্টে। বেঙ্গল টাইগার্স এর ইরফান হক করেন ৩৪১ রান করে হন দ্বিতীয় রানের অধিকারী হন। বেঙ্গল টাইগার্স এর জিয়া ফরহাদ ১৬ টি উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সর্বোচচ উইকেট এর অধকারী হন। এখানকার বাংলাদেশী ক্রিকেটারা স্বপ্ন দেখেন তারা ও একদিন বাংলাদেশ বা কানাডার জাতীয় দলে খেলবেন।