রবিউলের গোলে কম্বোডিয়াকে হারাল বাংলাদেশ

image

নমপেনের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে রবিউল হাসানের একমাত্র গোলে বাংলাদেশ স্বাগতিক কম্বোডিয়াকে হারিয়েছে। ৮২ মিনিটে মধ্যমাঠ থেকে বাড়ানো বল দারুণভাবে নামিয়ে সুফিল বাড়ান রবিউলের উদ্দেশ্যে। বক্সের মধ্যে দারুণ প্লেসিং শটে গোল করেন রবিউল হাসান। বিপলু আহমেদের বদলি নেমেছিলেন তিনি। ম্যাচের বাকি সময় স্বাগতিক কম্বোডিয়া সমতা আনার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। বাংলাদেশ ১-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। তিন বছরের বেশি সময় পর বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের বিদেশের মাটিতে জয়। সর্বশেষ বিদেশের মাটিতে জয় ছিল ২০১৫ কেরালা সাফে ভুটানের বিপক্ষে।

ঘরোয়া ফুটবলে রবিউল হাসান আরামবাগের হয়ে খেলেন। ২০১৮ সালে এশিয়ান গেমস ও সাফের দলে ডাক পেয়েছিলেন রবিউল। জাতীয় দলের হয়ে ২০১৮ সালে বদলি হয়ে কয়েকটি ম্যাচ খেললেও গোল করতে পারেননি। দলকে জিতিয়ে অত্যন্ত উচ্ছ্বসিত গোলদাতা রবিউল হাসান,‘ খুবই ভালো লাগছে। অনুভূতি বলে প্রকাশ করতে পারছি না। জীবনের প্রথম গোল। তাও আবার বিদেশের মাটিতে। আমার একমাত্র গোলই বাংলাদেশ জিতেছে। অল্প বয়সে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া এবং গোল করে দেশকে জেতানো আসলেই অনেক ভাগ্যের ব্যাপার। আমি আমার গোলকে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করলাম। ’

কম্বোডিয়ার বিপক্ষে আগের তিন ম্যাচে দু’বারই জিতেছিল বাংলাদেশ। ২০০৬ সালে এএফসি চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের মাটিতে ২-১ গোলে। পরের বছর দিল্লিতে নেহেরু কাপে ১-১ গোলে ড্র হয় ম্যাচ। ২০০৯ সালে ঢাকায় এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপে বাংলাদেশ জিতেছিল ১-০ গোলে।

ফিফা র‌্যাংকিং, প্রচ- গরম, টার্ফ সব মিলিয়ে বাংলাদেশের জন্য প্রতিকূল ছিল পরিস্থিতি। এত প্রতিকূলতার বিপক্ষে লড়াই করে বাংলাদেশ জিতেছে। টানা দুই হারের পর জয়ে ফিরল দল। বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের গ্রুপ পর্বে গত অক্টোবরে লাওসকে সবশেষ হারিয়েছিলেন জামাল-বিপলুরা।

গোলশূন্য প্রথমার্ধের ৩৪ মিনিটে কম্বোডিয়ার চং বুন্নাথের হেড অল্পের জন্য ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। প্রথমার্ধে বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ গোলরক্ষককের তেমন কোন পরীক্ষা নিতে পারেনি। ৫৪ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার ভালো একটি সুযোগ নষ্ট হয় বাংলাদেশের। মতিন মিয়ার বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সের বাইরে থেকে জামাল ভূঁইয়ার ডান পায়ের জোরালো শট ঝাঁপিয়ে পড়ে ফিরিয়ে কম্বোডিয়ার ত্রাতা গোলরক্ষক। ৭২ মিনিটে মতিনকে তুলে নিয়ে মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে এবং চার মিনিট পর নাবীব নেওয়াজ জীবনের জায়গায় মাহবুবুর রহমান সুফিলকে নামান বাংলাদেশ কোচ। ৭৮ মিনিটে মাশুক মিয়া জনির শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।