পরিবহন সেক্টরকে মাফিয়ামুক্ত করুন

সাত দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘটে গত সোমবার দিনভর দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সিলেট থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। এমনকি অভ্যন্তরীণ সড়কে বাস, মাইক্রোবাস, অটোরিকশাসহ কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করেনি। এর ফলে প্রয়োজনীয় কাজে ঘর থেকে বেরিয়ে ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ। গত শনিবার সংবাদ সম্মেলন করে ৭ দফা দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দেয় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট বিভাগ। সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে উদার পরিবহনের বাসের চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে মামলার এজাহারে তারা ৩০২ (হত্যা মামলা) ধারার বদলে ৩০৪ বি (দুর্ঘটনায় মৃত্যু) ধারা যুক্ত করার দাবি করা হয়। পূর্ব ঘোষণা অনুসারে সিলেট বিভাগে শুরু হয় পরিবহন ধর্মঘট। পূর্বঘোষিত এ কর্মসূচি চলাকালে কোন ধরনের পিকেটিং না করার অঙ্গীকার করলেও সকাল থেকে নগরীর কদমতলীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে অবস্থান নেন পরিবহন শ্রমিকরা। এছাড়া নগরীর প্রবেশদ্বার বলে পরিচিত হুমায়ুন রশীদ চত্বর, চন্ডীপুল, তেতলী এলাকায় পরিবহন ধর্মঘটের মতো পিকেটিং করা হয়। গত সোমবার এইচএসসি পরীক্ষা ছিল। ধর্মঘটের ফলে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে পৌঁছাতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়।

এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, সিলেটে পরিবহন ধর্মঘটের নামে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে শ্রমিকরা। অতীতেও দেখা গেছে সড়কে দুর্ঘটনার মৃত্যুর শাস্তি গুরুদন্ডের আইন প্রণীত হলেও মালিক-শ্রমিকদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে গুরুদন্ড লঘুদন্ডে পরিণত হয়েছে। এবারও একই পথ বেছে নেয়া হয়েছে। একের পর এক দুর্ঘটনা সড়ক নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে মারাত্মক হুমকির মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। অবশ্য সব দুর্ঘটনাকে নিছক দুর্ঘটনা বলার সুযোগ আছে কি না তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। যে দুর্ঘটনার জন্য সিংহভাগ দায়ী চালক, সেই দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে সেটিকে কেউ দুর্ঘটনা না বলে হত্যাকান্ড বললে কি অযৌক্তিক হবে?

বলাবাহুল্য, সড়ক পরিবহন খাতের মালিক এবং শ্রমিক সংগঠনের দাপটের কাছে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রাষ্ট্রযন্ত্র নির্লিপ্ত ভূমিকার পরিচয় দিচ্ছে। পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা মিলে শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। তারা পরিবহন খাতকে জিম্মি করে রেখেছে। পরিবহন খাতের কারো গায়ে আঁচড় পড়লে বা তাদের স্বার্থ ক্ষুণ্ন হলে তারা সঙ্গে সঙ্গে ধর্মঘট ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে যাত্রীসাধারণকে জিম্মি করে দাবি আদায়ের চেষ্টা করেছে। পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা আইনের তোয়াক্কা করে না। তারা আদালতের রায়কে অবজ্ঞা করে। দেশে এমন একটি অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে যে, তারা যদি অপরাধ করে থাকে, তবুও কোন অপরাধীর বিচার করা যাবে না। এ যেন ‘মামা বাড়ির আবদার’।

এ অনাচার কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। বেপরোয়া চালকের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে কোনরকম ছাড় দেয়া চলবে না। তবে পরিবহন সেক্টরের বিদ্যমান নৈরাজ্যকর পরিস্থিতিতে একজন-দুজন অপরাধীর বিচার হওয়াই যথেষ্ট নয়। গোটা পরিবহন সেক্টরকে আইন মেনে চলতে বাধ্য করা না গেলে এ ধরনের ঘটনা যে চলতেই থাকবে, এটি নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। তাই আমরা বলব, যেসব প্রভাবশালী ব্যক্তির কারণে এ সেক্টরটিতে অরাজকতা বিরাজ করছে, তাদের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নেয়া হোক। পরিবহন সেক্টরকে মাফিয়ামুক্ত করা হোক। সরকারকে বুঝতে হবে এর সঙ্গে শুধু জননিরাপত্তা নয়, সরকারের ভাবমূর্তির প্রশ্নও জড়িত।

দৈনিক সংবাদ : ৪ মে ২০১৯, শনিবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

সমাজ ও ব্যক্তির জন্য সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ সংকট

দেশে সংস্কৃতিচর্চার সুযোগ দিন দিন কমছে। সরকারি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে পেশাদারি, জবাবদিহি ও আন্তরিকতার অভাব। সংস্কৃতি

দেশের বাঁধগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে সংস্কারের লক্ষ্যে মনিটরিং করুন

ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলাদেশ অতিক্রম করে গেছে। ভারতের ওড়িশা উপকূলে আঘাত হানার পর পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ঘূর্ণিঝড়।

জঙ্গিবাদের হুমকি মোকাবিলায় ঐক্য গড়ে তুলুন

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে হামলার পরিকল্পনা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার

গণধর্ষণ মামলার চার্জশিট প্রশ্নবিদ্ধ পুলিশের ভূমিকা

সুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার নারীর অভিযোগ ছিল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজের পছন্দের প্রতীকে ভোট দেয়ায় তার ওপর নির্যাতন হয়েছে

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থা ত্রুটিমুক্ত করতে হবে

চাহিদার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা থাকলেও বিদ্যুৎ বিভাগ মানসম্মত বিতরণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে না পারায়

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।