সড়ক কবে নিরাপদ হবে

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে চতুর্থবারের মতো পালিত হলো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস। যদিও দেশে নিরাপদ সড়কের বিষয়টি শুধু কথার কথাই রয়ে গেছে। সড়ক-মহাসড়কে আজ পর্যন্ত বিন্দুমাত্র শৃঙ্খলা ফেরেনি। সম্প্রতি বিভিন্ন পত্রিকার রিপোর্ট বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনায় মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে এবং আহত হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করছে। সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশে রোজ যত লোক প্রাণ হারাচ্ছেন বা জখম হচ্ছেন, সেই পরিসংখ্যান শিউড়ে ওঠার মতো।

দেশের সড়ক-মহাসড়কে অনিয়ম-নৈরাজ্য ও দুর্ঘটনার খবরগুলো অত্যন্ত হতাশাজনক। দুঃখজনক হলো, এই অনিয়ম দীর্ঘদিন ধরেই চলছে। অনিয়ম বন্ধে উচ্চ আদালত এবং প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকেও বহু নির্দেশনা এসেছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কোন নির্দেশনা বাস্তবায়িত হয়নি। ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলায় বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীসহ সারা দেশে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বছর ১৯ সেপ্টেম্বর ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ জাতীয় সংসদে পাস হয়। গত বছর সে আইন কার্যকর হলেও কোন ধরনের সুফল মেলেনি। আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করা হয়নি। সড়ক পরিবহন আইন মানছে না পথচারী কিংবা পরিবহন চালকরা। সেটা দেখারও যেন কোন লোক নেই।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণগুলো সবার জানা। ট্রাফিক অব্যবস্থাপনা, ফিটনেসহীন যানবাহন চলাচল, বিধি লঙ্ঘন করে ওভারলোডিং ও ওভারটেকিং, সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেলসহ তিন চাকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি, স্থানীয়ভাবে তৈরি দেশীয় ইঞ্জিনচালিত ক্ষুদ্র যানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন, জনবহুল এলাকাসহ দূরপাল্লার সড়কে ট্রাফিক আইন যথাযথভাবে অনুসরণ না করা, দীর্ঘক্ষণ বিরামহীনভাবে গাড়ি চালানো, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক ও বেহাল সড়ক, ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চলাচল বন্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব এবং অদক্ষ ও লাইসেন্সবিহীন চালক নিয়োগের কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব কারণের সারমর্ম একটাই তা হচ্ছে, সর্বক্ষেত্রেই নিয়ম না মানা। গাড়ি চালানো এবং সড়ক ব্যবস্থাপনার নিয়মনীতিগুলো না মানলে দুর্ঘটনা হওয়াই স্বাভাবিক। সড়ক নৈরাজ্যের আরেকটি প্রধান কারণ রাজধানীর গণপরিবহন ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থা পুরোটাই বহুদিন ধরে এলোমেলো। এখানে সরকারের সঠিক কোন পরিকল্পনা নেই। কখনোই রাজধানীর গণপরিবহন ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর কথা চিন্তা করা হয়নি। এছাড়া সড়ক পরিবহন সেক্টরে বেপরোয়া ইউনিয়নবাজি ও মাফিয়া পরিবহন নেতাদের কারণে দানবে পরিণত হয়েছে সড়ক পরিবহন খাত। এতে রাষ্ট্রযন্ত্রের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই।

এটা সত্য যে, পরিবহন খাতে জবাবদিহিতার অভাব এবং দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে। জনগণ কেন সেবা পাচ্ছে না, এটা সরকারের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

গণপরিবহন সমস্যার সমাধানের জন্য এখন যে বাসগুলো চলে তার সবই তুলে দিতে হবে। কোম্পানির অধীনে পরিকল্পিতভাবে বাস চালাতে হবে। দুর্ঘটনায় দায়ীদের সাজা দিতে প্রচলিত আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। অপরাধীদের কোনরকম ছাড় দেয়া যাবে না।

পরিবহণ খাতের মাফিয়ারা পুরো সিস্টেমকে জিম্মি করে রেখেছে। তাদের কারণে কোন ধরনের আইন সঠিকভাবে প্রয়োগ করা যাচ্ছে না। এটা অবশ্যই মনে রাখা উচিত যে, রাষ্ট্র এবং সরকারের চেয়ে মাফিয়াচক্র বড় হতে পারে না। কাজেই পরিবহন খাতে সুশাসন ফিরিয়ে আনতে হলে সড়ক মাফিয়াদের সবার আগে নির্মূল করতে হবে। দুষ্টের দমন এবং শিষ্টের পালন করতে হবে।

বন্যহাতি নিধন বন্ধ করুন

কক্সবাজারে মানুষের নির্মমতায় একের পর এক মারা যাচ্ছে বন্যহাতি।

ধর্ষণ প্রতিরোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন চাই

ধর্ষণ সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) বিল-২০০০’ জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে।

সরকারি কেনাকাটায় অনিয়ম দূর করুন

সরকারি কেনাকাটায় কিছুতেই দুর্নীতি থামানো যাচ্ছে না। সুযোগ পেলেই সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, দপ্তর, অধিদপ্তরের কেনাকাটার সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা দুর্নীতি করছেন পণ্য কেনাকাটায়।

স্বাস্থ্যবিধির কঠোর প্রয়োগ চাই

দেশে করোনা শনাক্তের আট মাস পেরোলেও এখনও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করুন

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই যশোরের কেশবপুর উপজেলার শ্রীরামপুরে ফসলি জমিতে দুটি ইটভাটায় অবৈধভাবে ইট উৎপাদন ও বেঁচাকেনার কাজ চলছে।

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রসঙ্গে

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার নানা রকম চাপের কারণে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন পাহাড়ে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা নাগরিকরা নানা রকম অপরাধে জড়াচ্ছে।

মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মাদক বাণিজ্যের অভিযোগ সুরাহা করুন

এক শ্রেণীর মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র রোগীকে মাদকমুক্ত করার পরিবর্তে উল্টো মাদক ব্যবসা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাসপাতালগুলোর চিকিৎসা কার্যক্রম মনিটরিং করতে হবে

অনিয়মের বেসরকারি হাসপাতাল পুষছেন সরকারি ডাক্তাররা। সরকারি চাকরি করছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় কোন না কোন সরকারি হাসপাতাল কিংবা মেডিকেল কলেজে।

অভিনন্দন সাদাত

আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশের কিশোর সাদাত রহমান। সাইবার বুলিং ও সাইবার অপরাধ থেকে শিশুদের সুরক্ষা নিয়ে কাজ করে ‘শিশুদের নোবেল’ খ্যাত এ পুরস্কার জিতে নেয় নড়াইলের ১৭ বছরের এই কিশোর।